দেশ

রাজ্যে ধেয়ে আসছে সুপার সাইক্লোন বুলবুল! মোকাবেলা করতে সাত দফায় ব্যবস্থা মমতার প্রশাসনের..


এবার রাজ্যের দিকে প্রবল বেগে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। ইতিমধ্যে কলকাতা সহ উত্তর 24 পরগনায় তার প্রভাব দেখা দিতে শুরু করেছে যার দরুন আকাশ মেঘলা থাকার পাশাপাশি বেশকিছু এলাকায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়ে গেছে। আলিপুর আবহাওয়ার সূত্রে খবর আগামী কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বৃষ্টির পরিমাণ আরও বাড়তে চলেছে। গতকাল রাত্রি আটটায় আবহাওয়াবিদদের তরফ থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে সেই মুহূর্তে উপকূল থেকে প্রায় 530 কিলোমিটার দূরে ছিল বুলবুল।

আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে আরো জানা গেছে রবিবার দিন সকাল বেলা সাগরদ্বীপ, সুন্দরবন এলাকায় প্রথমে আছড়ে পড়তে চলেছে বুলবুল আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে এরপরে ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশের দিকে মোড় নিতে পারে তবে এই ক্ষেত্রে বুলবুল এর হাত থেকে নিস্তার পাবে না কলকাতা ও উত্তর 24 পরগনা। সাথে সাথে আরো জানতে পারা কিছু উপকূলে বুলবুলের আসতে যত দেরি হবে এই ঘূর্ণিঝড় ততটা বেশি শক্তি সঞ্চয় করে আসবে।

এরকম এক যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের মোকাবিলা করতে জেলা প্রশাসন নেমে পড়েছে। নবান্নে এই নিয়ে জরুরি বৈঠক করার পর জানানো হয়েছে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। একই সঙ্গে নির্দেশ পাঠানো হয়েছে জেলা প্রশাসনগুলি কেউ। সাথে সাথে নির্দেশ নামা পাঠানো হয়েছে জেলায় জেলায়।আপাতত এই পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে সরকারের তরফ থেকে যে পদক্ষেপগুলো নেওয়া হয়েছে সেগুলি হল নিম্নরূপ—

1) ইতিমধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সমস্ত ফেরি পরিষেবা কে
2) সাথে সাথেই স্কুল-কলেজগুলোতে বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে
3) বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর এর সমস্ত কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে
4) উদ্ধারকাজে তৈরি থাকতে বলা হয়েছে ফায়ার, বি এসএনএল ও পুলিশ দপ্তর কে
5)এনডিআরএফ কে বিভিন্ন সেন্টারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে সাথে সাথে সিভিক ভলেন্টিয়ার দের সঙ্গে উদ্ধারকারী দলকে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে
6) মাটির বাড়ি বা বিপদজনক বাড়ি থেকে মানুষকে সরিয়ে আনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে
7)প্রত্যেক বিডিওকে সেল্টার হাউসে জল ও বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী সহ ত্রাণ নিয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গ উড়িষ্যা সমুদ্রতীরবর্তী এলাকাগুলি সমুদ্র থেকে অতিরিক্ত হবার আশংকা করা হয়েছে যার জেরে সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকা বা সমুদ্রে নামতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আর যেসব মৎস্যজীবীরা ইতিমধ্যেই সমুদ্রের মধ্যে রয়েছে তাদেরকে দ্রুত উপকূলে ফিরে আসতে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। আবহাওয়া অফিস সূত্রে খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে আগামী 11 তারিখ পর্যন্ত চলবে এই সাইক্লোন বুলবুলের দাপট। যার জেরে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে চার দিনের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে।

অন্যদিকে উত্তর 24 পরগনা দক্ষিণ 24 পরগনা পূর্ব মেদনীপুর শহরে উপকূলবর্তী জেলাগুলোতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে। আর বাকি জেলাগুলিতে মাঝারি বৃষ্টিপাত চলবে বলে অনুমান আবহাওয়া অফিসের। আর তাই মৎস্যজীবীদের জন্য ও সাইক্লোন বুলবুলের কারণেই সর্তকতা জারি করা হয়েছে।

Related posts

Close