রাজনীতি

জনগণের উদেশ্যে মমতার চিঠি একটা জিনিসই প্রমাণ করে , বাংলার উন্নতিটা তার কাছে "অবসেশন "


ওয়েব ডেস্ক ১৩ই জুলাই  ২০১৯: চিঠি , এ এমন এক চিঠি যা মানুষের আশা আকাঙ্খা আরো বাড়িয়ে দেবে । মুছে দেবে সব গ্লানি । আশার নতুন কিরণ উঁকি দিচ্ছে । রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ডাকঘর ‘ নাটক নয় , মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাংলার মানুষের উদেশ্যে চিঠি । বর্তমান সময়ের সঙ্কটকে মনে করিয়ে চিঠির মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রী সকলকে নিয়েই ‘উন্নত বাংলা’ গড়ার স্বপ্ন দেখতে চেয়েছেন। কারণ মুখ্যমন্ত্রীর কথায় ‘উন্নয়নই আমাদের ব্রত।’ সর্বভারতীয় তৃণমূলের তরফে ‘শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন’ শীর্ষক পত্রের ছত্রে ছত্রে মমতা বাংলার মানুষের সহযোগিতার কথা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেছেন, ‘যখনই মানুষের অধিকারের দাবিতে আমরা পথে নেমেছি, তখনই সাথী হয়েছেন আপনারা।’ স্বীকার করেছেন, ‘আপনারা তৃণমূল কংগ্রেস ও মা মাটি মানুষের ওপর আস্থা রেখেছেন, আশীর্বাদ করেছেন, দোয়া দিয়েছেন এবং সাথে চলার অঙ্গীকার করেছেন।’

চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা, ‘শুধু মূর্তি ভেঙে বাংলার মেরুদণ্ডকে দুর্বল করা যাবে না। বাংলা চলবে তার সংস্কৃতি মেনে, সোনালি অতীতের আদর্শ অনুকরণ করে।’ চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ, বিদ্যাসাগর, রামমোহন, বিবেকানন্দ, নজরুল, নেতাজি সুভাষচন্দ্র, রামকৃষ্ণ, মহাত্মা গান্ধী প্রমুখ মনীষীর আদর্শের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। উল্লেখ করেছেন বীরসা মুণ্ডা, বিআর আম্বেদকর, আবুল কালাম আজাদ, ক্ষুদিরাম, প্রফুল্ল চাকি, ভগৎ সিংয়ের অবদান। তঁার বিশ্বাস, ‘আজও বাংলা শোষকের চোখে চোখ রেখে দৃপ্ত কন্ঠে গেয়ে উঠতে পারে বঙ্কিমচন্দ্রের বন্দেমাতরম আর ছিনিয়ে নিতে পারে তার অধিকার।’ ঠিতে বর্তমান ভারতের অবস্থা আর অবস্থানের কথাও উল্লেখ করেছেন মমতা। লিখেছেন, ‘বিভেদপন্থা গ্রাস করতে চাইছে আমাদের ভারতকে। প্রান্তিক মানুষের আবেগকে বিপথে চালিত করার চক্রান্ত চলছে। ধর্মের কারবারের মূল্য চোকাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।’ সদ্যসমাপ্ত লোকসভা ভোটে মানুষের ‘আশীর্বাদ–দোয়া’ তৃণমূলের ‘জয়ের পাথেয় হয়ে উজ্জ্বলতায় আলোকিত করেছে কাঙ্ক্ষিত বিজয়কে’, এ কথা জানিয়ে মমতার দাবি, ‘আমি অন্তর থেকে বিশ্বাস করি ভোটযন্ত্রের যান্ত্রিকতার চাতুর্যে মা মাটি মানুষের রায়কে বেশিদিন বিভ্রান্ত করা যাবে না।’ বাংলার মানুষকে সঙ্গে নিয়েই ‘বাংলা জুড়ে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ চলবে’ জানিয়ে খোলা চিঠিতে মমতার আহ্বান, ‘আমাদের লড়াই বাংলার গণতন্ত্র বঁাচানোর লড়াই, মানুষের অধিকারের লড়াই। আসুন সকলকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে মানুষের স্বার্থে লড়াই চালিয়ে যাই।’
গোটা রাজ্যের সঙ্গে পূর্ব বর্ধমান জেলাজুড়ে এই চিঠি বিলি করছেন তৃণমূলের সব স্তরের নেতা–কর্মীরা।এই চিঠির প্রাপ্তিতে অনেকেরই অভিমত , বাংলার উন্নয়নটা মমতার কাছে একটা “অবসেশন” । এর কোনো দ্বিমত নেই । 

Related posts

Close