রাজনীতি

বেআইনি কাজ করার প্রবণতা থেকেই ভারতী ঘোষ আবার বিপাকে ,পুলিশ মধ্যরাতে আটক করল তার গাড়ি


ওয়েব ডেস্ক ১০ই মে ২০১৯: ভারতী ঘোষের বেআইনি কাজ করার  মানসিকতা চির কালই ছিল । এই নিয়ে  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছেও কম নালিশ জমা পড়েনি , রাজ্য সরকার এগুলো কোনো কালেই বরদাস্ত করেনি আর সেই জন্যই ভারতী ঘোষের বিজেপিতে চলে যাওয়া । তবে সেখানে গিয়েও হয়তো ভেবেছিলেন তিনি বিজেপির ছত্র ছায়ায় যা খুশি তাই করবেন আর কেউ তাকে কিছুই বলার থাকবেননা ।  তবে সেটা হলনা পুলিশের তৎপরতায় । বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ভারতীর গাড়ি থেকে লক্ষাধিক নগদ টাকা বাজেয়াপ্ত করল পুলিশ। গতকাল গভীর রাতে পশ্চিম মেদিনীপুরের পিংলায় নাকা তল্লাশির সময় ভারতী ঘোষের গাড়ি আটকায় পুলিশ। গাড়ি থেকে নগদ ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৯৫ টাকা উদ্ধার করা হয়। প্রথমে গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করেন ভারতী। পরে পুলিশ ভারতীকে আটক করে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করে। রাত ২টো নাগাদ ভারতীকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এদিকে, কেন ঘাটালের বিজেপি প্রার্থীকে গ্রেফতার করা হল না, এ নিয়ে পিংলায় অবরোধ করে তৃণমূল। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামলায়। এদিকে, এ ঘটনায় জেলাশাসকের থেকে রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন।ঠিক কী ঘটেছে?

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে পিংলায় নাকা তল্লাশির সময় ভারতী ঘোষের গাড়ি আটকায় পুলিশ। প্রথমে গাড়ি নিয়ে চম্পট দেওয়ার চেষ্টা করেন ভারতী। পরে পুলিশের হাতে আটক হন প্রাক্তন আইপিএস। গাড়ি থেকে নগদ ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৯৫ টাকা উদ্ধার করা হয়। ভারতীকে থানায় নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তবে সিজার লিস্টে সই না করেই ভারতীকে রাত ২টো নাগাদ ছেড়ে দেওয়া হয়। কেন বিজেপি প্রার্থীকে গ্রেফতার করা হল না? কেন সিজার লিস্টে সই না করিয়েই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হল? এ নিয়ে সরব হয় পিংলা ব্লক তৃণমূল। ভারতীকে গ্রেফতারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ করেন তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়।
ভোট কেনার জন্যই টাকা বিলোচ্ছেন ভারতী ঘোষ, এ অভিযোগই করেছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। জেলা তৃণমূল সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, ‘‘আমরা জানতাম, উনি টাকা ছড়িয়ে ভোট করার চেষ্টা করবেন, ওঁর পদ্ধতি এটাই। উনি রাতের অন্ধকারে টাকা বিলি করছিলেন। ওঁকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।’’ স্বভাব সিদ্ধভাবে ভারতী দেবীর উক্তি তাকে ফাঁসানো হয়েছে , তবে সেই দাবি যে ধোপে টিকছেনা সেটা ভারতী ঘোষ নিজেও হয়তো বুঝতে পারছেন । 

Related posts

Close